ফ্রিল্যান্সিং কোর্স / আমাদের সার্ভিস

ওয়েবসাইট খুলে কিভাবে টাকা আয় করা যায়

আপনি কি জানেন কিভাবে ওয়েবসাইট খুলে টাকা আয় করা যায়? তাহলে আজকের এই পর্বটি আপনার জন্য।কারন আজকের এই পর্বে আমি ওয়েবসাইট খুলে কিভাবে টাকা আয় করা যায় এই সম্পর্কে আলোচনা করবো।

অনেকেই নিজের ব্যক্তিগত কারনে ওয়েবসাইট তৈরি করে, আবার অনেকে টাকা আয় করার উদ্দেশে ওয়েবসাইট তৈরি করে থাকে। কিন্তু বেশিরভাগ মানুষ জানে না ওয়েবসাইট খুলে কিভাবে টাকা আয় করা যায়। তাই আজকের পর্বে ওয়েবসাইট খুলে টাকা আয় করার কিছু জনপ্রিয় উপায় বলে দিবো।

চলুন শুরু করা যাক,

কিভাবে ওয়েবসাইট খুলে টাকা আয় করা যায়

ওয়েবসাইট থেকে আয় করার অনেক উপায় রয়েছে। তবে বেশিরভাগ মানুষ ৫টি উপায় অবলম্বন করে টাকা আয় করতে।

  1. ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে আয় করা
  2. কমিশনের মাধ্যমে অন্যের পণ্য বিক্রি করা
  3. নিজের পণ্য বিক্রি করা
  4. কোম্পানির স্পন্সরশীপ থেকে আয় করা
  5. ওয়েবসাইট বিক্রি করে আয় করা

আজকে আমরা এই ৫টি নিয়েই বিস্তারিত আলোচনা করবো।

ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে আয়

ওয়েবসাইট থেকে টাকা আয় করার প্রথম যে উপায়টি বলবো সেটি হচ্ছে ওয়েবসাইটের বিজ্ঞাপন থেকে আয় করা।

প্রায় প্রতিটা ওয়েবসাইটে বিভিন্ন কোম্পানির বিজ্ঞাপন দেখানো হয় ভিজিটরদের। আপনি যদি কোনো ওয়েবসাইট ভিজিট করেন তাহলে দেখতে পাবেন ওয়েবসাইটের উপরে, নিচে, ডানে, বামে প্রচুর বিজ্ঞাপন দেখানো হচ্ছে।

আর সেই বিজ্ঞাপন থেকেই ওয়েবসাইটের মালিকরা টাকা আয় করে থাকে।

অনলাইনে বিজ্ঞাপন দেখানোর অনেক মাধ্যম রয়েছে। তাদের মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় হচ্ছে গুগল এডসেন্স। এছাড়াও আরো অনেক মাধ্যম রয়েছে যেমন, Media.net, Mediavine, Adversal, Ezoic ইত্যাদি।

এই গুগল এডসেন্স গুগলের একটি এডভারটাইজিং কোম্পানি যেটা বিভিন্ন কোম্পানিকে অনলাইনে প্রচার প্রচারনা করার জন্য ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে থাকে।

গুগল এডসেন্স ওয়েবসাইটে ব্যবহার করলে প্রতি মাসে যত টাকা ইনকাম হয় সেটি ব্যাংক এর মাধ্যমে পাঠিয়ে দেয়। তাই টাকা আয় করাটা অনেক নিরাপদ হয়ে যায় সবার জন্য।

আপনি যদি গুগল এডসেন্স থেকে টাকা আয় করতে চান তাহলে এখনই একটি প্রফেশনাল ওয়েবসাইট তৈরি করে আবেদন করে ফেলুন।

কমিশনের মাধ্যমে অন্যের পণ্য বিক্রি করা

ওয়েবসাইট খুলে টাকা আয় করার দ্বিতীয় উপায়টি হচ্ছে কমিশনের মাধ্যমে অন্যের পণ্য বিক্রি করা যাকে ইন্টারনেটের ভাষায় এফিলিয়েট মার্কেটিং বলা হয়।

এখানে আপনার কোনো পণ্য থাকবে না, আপনি অন্যের কোম্পানির পণ্য কাস্টমারদের কাছে বিক্রি করবেন আপনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে।

যখন কোনো কাস্টমার আপনার ওয়েবসাইট থেকে পণ্য কিনবে তখন সাথে সাথে আপনি সেই পণ্যের কমিশন পাবেন।যত বেশি বিক্রি করতে পারবেন তত বেশি কমিশন আয় হবে।

যারা প্রফেশনাল টাকা মাসে লাখ লাখ টাকা ইনকাম করছে শুধুমাত্র এই এফিলিয়েট মার্কেটিং করে।তাই আপনার যদি একটি ওয়েবসাইট থাকে তাহলে এখনই শুরু করে দিতে পারেন এই এফিলিয়েট মার্কেটিং।

ওয়েবসাইট খুলে টাকা আয়

নিজের পণ্য বিক্রি করা

ওয়েবসাইট খুলে টাকা আয় করার আরো একটি উপায় হচ্ছে নিজের পণ্য বিক্রি করে ওয়েবসাইট থেকে আয়।

আপনার নিজের যদি কোনো পণ্য থাকে তাহলে সেগুলো আপনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বিক্রি করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। অনেক ওয়েবসাইট মালিকরাই করে থাকে। আমি নিজেও করছি আমার এই ওয়েবসাইটে।

কোম্পানির স্পন্সরশীপ থেকে আয় করা

আমরা ইতিমধ্যে জেনেছি ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন থেকে আয় করার অন্যতম একটি জনপ্রিয় উপায় হচ্ছে গুগল এডসেন্স। কিন্তু এই গুগল এডসেন্স থেকেও আপনি বেশি ইনকাম করতে পারবেন স্পন্সরশীপ থেকে।

ওয়েবসাইটে যদি অধিক পরিমানে ভিজিটর থাকে তাহলে বিভিন্ন কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করে তাদের স্পন্সরশীপ নিতে পারেন।

কোম্পানিগুলো আপনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে তাদের প্রোডাক্ট প্রচার প্রচারনা করবে। বিনিময়ে তারা আপনাকে টাকা দিবে।সাধারণত প্রতিটি স্পন্সরশীপ এর জন্য ২০০ থেকে ২৫০ ডলার চার্জ করা যায়।

তাই আপনার ওয়েবসাইটে যদি অনেক বেশি ট্রাফিক বা ভিজিটর থাকে তাহলে অবশ্যই স্পন্সরশীপ থেকে আজই আয় করা শুরু করুন।

ওয়েবসাইট বিক্রি করে আয় করা

সর্বশেষ যেই উপায়টির কথা বলবো সেটি হচ্ছে ওয়েবসাইট ফ্লিপিং বা ওয়েবসাইট বিক্রি করে আয় করা।

একটি ওয়েবসাইট ২/৩ বছর ব্যবহার করে প্রতি মাসে টাকা ইনকাম করার পর সেই ওয়েবসাইটটি চাইলে আপনি বিক্রি করে দিতে পারেন।

ওয়েবসাইট বিক্রি করার সময় ইনকামের ৩০ গুন দামে বিক্রি করা যায়। ওয়েবসাইট বিক্রি করার অনেক মার্কেটপ্লেস রয়েছে যেমন, flippa, empireflippers ইত্যাদি।

তো এই ছিলো, ওয়েবসাইট খুলে কিভাবে টাকা আয় করা যায় বা ওয়েবসাইট থেকে আয় করার কিছু জনপ্রিয় উপায়।

যদি কোনো প্রশ্ন থাকে তাহলে অবশ্যই নিচে কমেন্ট করে জানাবেন। আমি উত্তর দেয়ার চেষ্টা করবো।

এছাড়াও আপনি যদি ওয়েব ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, ওয়ার্ডপ্রেস, ইউটিউবিং, টেকনোলজি বিভিন্ন টিপ্স এন্ড ট্রিক্স, ডিজিটাল স্কিল শিখতে চান তাহলে আমার ইউটিউব চ্যানেল আজই সাবস্ক্রাইব করে ফেলুন। কারন আমি প্রতিনিয়ত ডিজিটাল স্কিল বিষয়ক টিউটোরিয়াল পাবলিশ করে যাচ্ছি আমার চ্যানেলে।

Leave a Comment

Don`t copy text!