Tokoo ইকমার্স ওয়ার্ডপ্রেস থিম ডাউনলোড করে নিন

tokoo wordpress theme

আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করে একটি প্রফেশনাল ইকমার্স ওয়েবসাইট তৈরি করার কথা ভাবছেন তাহলে এই আর্টিকেলটি আপনার জন্য। কারন এই আর্টিকেলে আমি শেয়ার করবো একটি প্রিমিয়াম ইকমার্স ওয়ার্ডপ্রেস থিম যার নাম tokoo. এই থিম ব্যবহার করে আপনি যে শুধু ইকমার্স ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন এমন না, এই থিমটি ইকমার্স ওয়েবসাইট তৈরি করার পাশাপাশি এফিলিয়েট ওয়েবসাইট, ড্রপশিপিং ওয়েবসাইট, এমাজনের মতো মাল্টিভেন্ডর ওয়েবসাইটও সাথে তৈরি করতে পারবেন।

এছাড়াও আপনি যদি একজন ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপার হোন তাহলে এই থিমটি দিয়ে আপনার ক্লাইন্টের জন্য ওয়েবসাইট তৈরি করে দিতে পারবেন। থিমটি ১০০% ভাইরাস মুক্ত এবং থিম্ফরেস্ট থেকে অফিসিয়ালি সংগ্রহ করা হয়েছে। তাই নিশ্চিন্তে ব্যবহার করতে পারেন আপনার ওয়েবসাইটে অথবা ক্লাইন্টের ওয়েবসাইটে।

চলুন এখন জেনে নেই Tokoo থিমের কিছু বৈশিষ্ট্য:

  1. এই থিমটি ইলেক্ট্রনিক্স পণ্য বিক্রি করার জন্য বেস্ট একটা ওয়ার্ডপ্রেস থিম
  2. থিমটিতে ৫টি রেডিমেট হোমপেজ রয়েছে এবং সাথে ১৭টি আলাদা ডিজাইনের লেয়াউট রয়েছে
  3. ৪টি রেডিমেট হেডার রয়েছে এবং সবগুলোর ডিজাইন আলাদা
  4. মোবাইল ডিভাইসের জন্য প্রতিটা হেডারের ডিজাইন আলাদা
  5. থিমটি ব্যবহার করলে ওয়েবসাইট স্পিড সুপার ফাস্ট এক্সপিরিয়েন্স দিবে
  6. পুরো থিমটি এলিমেন্টর এবং কিং কম্পসার এই দুইটা পেজ বিল্ডার দিয়ে তৈরি করা হয়েছে
  7. ৬টি আলাদা আলাদা রেডিমেট কালার রয়েছে
  8. প্রোডাক্ট বিক্রি করার জন্য অনেকগুলো রেডিমেট শপ পেজ রয়েছে

এগুলোর পাশাপাশি Tokoo থিমটিতে আছে ২টি রেডিমেট ডেমো ওয়েবসাইট যেগুলো ব্যবহার করার মাধ্যমে মাত্র এক ক্লিকেই ওয়েবসাইট তৈরি করা যাবে। এবং পরবর্তীতে নিজের মতো করে কাস্টমাইজ করে নেয়া যাবে। তাই আপনার যদি কোডিং সম্পর্কে ধারনা না থাকে তাহলে খুব সহজেই সেই রেডিমেট ডেমোগুলো ব্যবহার করার মাধ্যমে অনায়াসে প্রফেশনাল ইকমার্স ওয়েবসাইট তৈরি করে ফেলতে পারবেন। তাই আর দেরি না করে এখনি সংগ্রহ করে রাখুন Tokoo ওয়ার্ডপ্রেস থিম।

Tokoo ওয়ার্ডপ্রেস থিম কিভাবে ব্যবহার করবেন?

প্রথমেই উপরের লিঙ্ক থেকে থিমটি ডাউনলোড করে নিবেন। আপনাদের সুবিধার জন্য গুগল ড্রাইভ লিঙ্ক দেয়া হয়েছে। ডাউনলোড করার পর একটি জিপ ফাইল পাবেন। সেই ফাইলটি প্রথমেই আনজিপ করতে হবে। আনজিপ করার পর অনেকগুলো ফোল্ডার দেখতে পাবেন আপনি যেমন লাইসেন্স, ডকুমেন্টেশন, ডেমি ডাটা, থিম ফাইলস ইত্যাদি। এগুলোর থেকে থিম ফাইলস নামে যেই ফোল্ডারটি রয়েছে সেইটাই থিমের মেইল ফাইল। সেখানে ক্লিক করলেই দেখবেন দুইটা থিম রয়েছে। একটি হচ্ছে থিমের মেইল ফাইল, আরেকটি হচ্ছে চাইল্ড থিম। দুটিই আমাদের প্রয়োজন হবে।

আরো পড়ুনঃ

  1. হোস্টিং সার্ভার থেকে ওয়ার্ডপ্রেস কিভাবে ইন্সটল করতে হয়
  2. ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে ইকমার্স ওয়েবসাইট কিভাবে তৈরি করতে হয়

এখন ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করে ড্যাশবোর্ড থেকে প্রথমে থিমের মেইল ফাইলটি আপলোড করতে হবে। কিন্তু এটা একটিভ করা যাবে না। এরপর চাইল্ড থিমটি আপলোড দিতে হবে এবং এটা একটিভ করতে হবে। একটি কথা মনে রাখবেন, যদি কোনো থিমের মধ্যে দুটি ফাইল থাকে তাহলে প্রথমে মেইল থিম ফাইলটি আপলোড দিতে হবে, একটিভ করা যাবে না। এরপর চাইল্ড থিম ফাইলটি আপলোড দিয়ে একটিভ করতে হবে।

দুটো থিম ভালোভাবে আপলোড করার পর এখন থিমের যেই রেডিমেট ডেমো রয়েছে সেটা ইমপোর্ট করতে হবে। আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রেস থিম কাস্টমাইজেশন শেখার জন্য থিমটি ব্যবহার করেন তাহলে ডেমো ইমপোর্ট না করে ম্যানুয়ালি ওয়েবসাইট তৈরি করুন তাহলে আপনার জন্য ভালো হবে।

আর অন্যদিকে, আপনি যদি প্রফেশনাল ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য থিমটি ব্যবহার করেন তাহলে রেডিমেট ডেমোগুলো ব্যবহার করতে পারেন।

যাইহোক, ডেমো ইমপোর্ট করার জন্য প্রথমেই আপনাকে কিছু প্লাগিন ইন্সটল করতে হবে যেগুলোর মধ্যে One Click Demo Import নামে প্লাগিনটি অবশ্যই ইন্সটল করতে হবে। ইন্সটল করার পর এখন আপনাকে Appearance > Import Demo Data তে ক্লিক করতে হবে। সেখানে গেলেই আপনি থিমের সাথে রেডিমেট দুটো ডেমো ওয়েবসাইট দেখতে পাবেন। এরপর ওয়ার্ডপ্রেস পেজ বিল্ডার সিলেক্ট করে Import Demo Data বাটনে ক্লিক করতে হবে। তবে অবশ্যই যেই পেজ বিল্ডারটা সিলেক্ট করবেন সেই পেজ বিল্ডার সম্পর্কে আপনার ধারনা থাকতে হবে নাহলে নিজে থেকে ওয়েবসাইট তৈরি করাটা আপনার জন্য কঠিন হয়ে যাবে। ডেমো ইমপোর্ট করার পর এখন আপনাকে নিজে থেকে ওয়েবসাইটটি কাস্টমাইজ করে নিতে হবে।

যদি পুরো প্রক্রিয়াটা আপনার কাছে কঠিন মনে হয় তাহলে উপরের ভিডিওটি দেখে নিতে পারেন। এই ভিডিওতে আমি একদম শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত থিমের কোথায় কি আছে সব আলোচনা করেছি। ভিডিও দেখার পরেও যদি আপনার বিষয়টা ক্লিয়ার না থাকে তাহলে কোনো প্রফেশনাল ওয়েব ডেভেলপারের সহায়তা নিতে পারেন।

যাইহোক, আশা করছি Tokoo থিমটি ব্যবহার করে আপনার অনেক উপকার হবে। যদি কোনো প্রশ্ন থাকে তাহলে অবশ্যই নিচে কমেন্ট করে জানিয়ে দিবেন। আমি উত্তর দেয়ার চেষ্টা করবো।

এছাড়াও আপনি যদি ওয়েব ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, ওয়ার্ডপ্রেস, ইউটিউবিং, টেকনোলজি বিভিন্ন টিপ্স এন্ড ট্রিক্স, ডিজিটাল স্কিল শিখতে চান তাহলে আমার ইউটিউব চ্যানেল আজই সাবস্ক্রাইব করে ফেলুন। কারন আমি প্রতিনিয়ত ডিজিটাল স্কিল বিষয়ক টিউটোরিয়াল পাবলিশ করে যাচ্ছি আমার চ্যানেলে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here